তাজা খবর
জামাল খাশোগির দেহ টুকরো করার ছবি ফাঁস

জামাল খাশোগির দেহ টুকরো করার ছবি ফাঁস

আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্কঃ ভিন্নমতাবলম্বী সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি গেল ২ অক্টোবর তুরস্কে অবস্থিত সৌদি দূতাবাসে নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়ার পর বেরিয়ে আসতে থাকে একের পর এক চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি আরবের পাঠানো ১৫ সদস্যের কিলিং স্কোয়াডই যে খাশোগির হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তার সর্বশেষ প্রমাণ হিসেবে বেরিয়ে এসেছে তার মরদেহ টুকরো টুকরো করার কিছু ছবি।

ইরাক ও মধ্যপ্রাচ্য নিয়ে কাজ করা সাংবাদিক, আন্দোলন কর্মী ও স্বাধীন লেখকদের জন্য উন্মুক্ত প্লাটফর্ম আল-সুরা এ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ওই প্রতিবেদনে তারা কিছু ছবি প্রকাশও করেছে। তাদের দাবি, ওই ছবিগুলো সাংবাদিক জামাল খাশোগির দেহ টুকরো করার ছবি।

প্রকাশিত প্রতিবেদনটিতে জানানো হয়, খাশোগিকে হত্যার পর ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য তার মরদেহ প্রথমে টুকরো টুকরো করা হয়। তুরস্কের তদন্ত কর্মকর্তার মাধ্যমে তাদের হাতে যে ছবি এসেছে, সেখানে খাশোগির মরদেহ টুকরো করার দৃশ্য দেখা যায় বলে তারা দাবি করছেন।

খাশোগি হত্যাকাণ্ডের প্রায় দেড় মাসেরও বেশি সময় পার হবার পর প্রথমবারের মতো হত্যাকাণ্ডের ছবি প্রকাশিত হলো। তবে এখনো নির্ভরযোগ্য কোন পক্ষ থেকে এ ছবিগুলোর সত্যতা যাচাই করা হয়নি বলে তারা জানান।

সৌদি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত ১৫ সদস্যের কিলিং স্কোয়াডকে খাশোগি হত্যার জন্য তুরস্কে পাঠানো হয়েছিলো। তাদের কাছে আগে থেকেই তথ্য ছিল যে, ২ অক্টোবর কনস্যুলেটে যাবেন খাশোগি। তাই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী সেদিনই তারা কনস্যুলেটে গিয়ে খাশোগিকে হত্যার পর তার মরদেহ টুকরো টুকরো করে। পরে প্রমাণ নষ্ট করতে এসিডের মাধ্যমে তা গলিয়ে ফেলে। ১৫ সদস্যের সেই কিলিং স্কোয়াডে একজন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞও ছিলেন, যিনি সৌদি যুবরাজের ঘনিষ্ঠ লোক বলে পরিচিত।

খাশোগি নিখোঁজ হওয়ার পর রিয়াদ প্রথমে তা অস্বীকার করলেও চাপে পড়ে ঘটনা ঘটার সপ্তাহখানেক পর সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেল শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হন যে খাশোগিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এদিকে সম্প্রতি সৌদি কর্তৃপক্ষ খাশোগি হত্যায় জড়িত ১১ জন ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করেছে। এদের মধ্যে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার ঘোষণা প্রদান করেছে তারা।

মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সিআইএ খাশোগি হত্যাকাণ্ডের তদন্তের পর জানিয়েছে, গেল ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি দূতাবাসে খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন স্বয়ং যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

এছাড়া এ ঘটনার প্রায় একমাস পর তুরস্ক জানায়, খাশোগি হত্যার অডিও রেকর্ডিং রয়েছে তাদের কাছে। এছাড়া ওই রেকর্ডিংগুলো তারা এরই মধ্যে পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে পাঠিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*